বিএনপি ছাড়ছেন শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন


শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন

একটানা এক যুগের বেশি ক্ষমতার বাইরে থাকা বিএনপি মাঠের কর্মসূচিতেও অনেকটা নিষ্ক্রিয়। দুর্নীতির মামলায় দণ্ডিত দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলনেও ছাপ রাখতে পারেননি বিএনপির শীর্ষ নেতারা। আবার বয়সের দোহাই দিয়ে রাজনীতি থেকে অবসরে গেছেন কয়েকজন নেতা।

গুঞ্জন রয়েছে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাবেক উপ-প্রধানমন্ত্রী শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন বিএনপির রাজনীতি থেকে বিদায় নিতে পারেন।

শাহ মোয়াজ্জেম হোসেনের পারিবারিক এবং ব্যক্তিগত বন্ধুরা এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর থেকেই দলীয় রাজনীতি থেকে শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন নিজেকে পুরোপুরি গুটিয়ে নিয়েছেন। বর্তমানে গুলশানের বাসভবনেই নিজ নির্বাচনী এলাকার মানুষদের সাথে সুখ-দুঃখের গল্প করেই সময় পার করছেন বর্ষিয়ান এ নেতা।

বঙ্গবন্ধুর এক সময়ের স্নেহভাজন শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন ছাত্র রাজনীতিতে বাংলাদেশ ছাত্রলীগে উজ্জল ভূমিকা পালন করলেও স্বৈরাচার এরশাদের দলে জাপায় যোগ দিয়ে গুরুত্বপূর্ণ পদে আসীন হন। জাপার মহাসচিবের দায়িত্বও পালন করেন দীর্ঘদিন। সরকারেও তার ভূমিকা ছিল অনবদ্য। এরশাদ তাঁকে উপ-প্রধানমন্ত্রীরও দায়িত্ব দেন। বিভিন্ন টানাপোড়নের মধ্য দিয়ে এক সময় এরশাদের জাপা ছেড়ে যোগ দেন বিএনপিতে। বিএনপিতে তাঁকে ভাইস-চেয়ারম্যান পদে আসীন করে।

শাহ মোয়াজ্জেম হোসেনের ঘনিষ্ঠ এক সহচর জানান, বিএনপির রাজনীতি করার অনুকূল পরিবেশ না থাকায় লিডার চুপচাপ আছেন। তার মতে, বিএনপি অদৃশ্য সুতার টানে চলে। যে দলের নেতা কে সেটা পরিস্কার নয় সে দলের রাজনীতি না করাই শ্রেয়।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি ‘দলের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলে’ পদত্যাগ করেন সাবেক পররাষ্ট্র মন্ত্রী মোরশেদ খান এবং অবসরপ্রাপ্ত লে: জেনারেল মাহবুবুর রহমান। সিলেটের মেয়র আরিফুল হকসহ সেখানকার কয়েকজন নেতাও পদত্যাগের হুমকি দিয়েছেন।

এসএম/আওয়াজবিডি