/ins>

ভোলার লালমোহন হাসপাতালে নানান সংকট: রোগিদের চরম ভোগান্তি

বরিশাল ব্যুরো

ভোলার লালমোহন হাসপাতালে স্যালাইনসহ প্রয়োজনীয় ওষুধ সংকটের কারনে ডায়রিয়া ও অন্যান্য রোগিদের চরম ভোগান্তির অভিযোগ উঠেছে। এছাড়া ডাক্তার ও সেবিকাসহ স্টাফ সংকটের কারনে সেবা প্রত্যাশী রোগিদের ভোগান্তি ক্রমান্বয়ে প্রকট হচ্ছে বলে জানা যায়। প্রতিদিন গড়ে ৫০/৬০ জন রোগি ভর্তি থাকে।

চলতি মৌসুমে ডায়রিয়া রোগির সংখ্যাই বেশি। কিন্তু রোগিদের জন্য পর্যাপ্ত সেলাইন সরবরাহ নেই। হাসপাতালে ভর্তি থেকে ডায়রিয়া রোগি সেলাইন পাচ্ছেনা।

অন্যান্য ওষুধেরও সংকট রয়েছে। এখন ডায়রিয়া রোগের প্রকোপ বেশি। হাসপাতালে এসে সেলাইনসহ প্রয়োজনীয় ওষুধ হাসপাতাল না পাওয়া সেবা প্রত্যাশীদের মধ্যে চরম ক্ষোভ ও হতাশা সৃষ্টি হয়।

/ins>

প্রায় প্রতিদিনই কর্তব্যরত নার্স ও স্টাফদের সাথে বাকবিতণ্ডা হয়। হাসপাতালে সাপ্লাই নেই কিংবা স্টোরে নেই বলে কর্তব্যরত নার্স স্টাফরা রোগিদেরকে সাফ জানিয়ে দেয়। বাধ্য হয়ে তারা বাহির থেকে কিনে আনেন। ৭ মে ২০১৮ ইং সোমবার ডায়রিয়া রোগি ভর্তি হয় ১৯জন।

/ins>

এর আগেরও রোগি ছিল। পরের দিন রবিবারেও ডায়রিয়া রোগি আসে। কোন রোগিকেই হাসপাতাল থেকে স্যালাইন দেওয়া হয়নি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক নার্সসহ স্টাফরা জানান, প্রতি সপ্তাহে মাত্র ১০টি করে স্যালাইন স্টোর থেকে দেওয়া হয়।

/ins>

অথচ এক একজন ডায়রিয়া রোগির ৫/৭ ক্ষেত্র বিশেষে ১০/১২টি স্যালাইনও লাগে। সাপ্লাইয়ের পরিমান প্রয়োজনের তুলনায় একেবারেই অপ্রতুল। শিশু থেকে শুরু করে বৃদ্ধ পর্যন্ত সব বয়সের রোগিই আসে।

এদিকে হাসপতালে প্রয়োজনীয় জনবলের প্রচন্ড অভাব। ডাক্তার নার্সসহ অন্যান্য স্টাফ সংকটের কারনে রোগিদের ভোগান্তি হচ্ছে। জনবল সংকটের কারনে একই ডাক্তার নার্স কিংবা স্টাফ একটানা ডিউটি করতে হয়।

/ins>

এতে জরুরি বিভাগে এবং ভর্তি রোগিদের চিকিৎসা সেবা অনেকাংশেই ব্যাহত হয়। রেডিও গ্রাফার, কার্ডিও গ্রাফার তথা টেকনেশিয়ানের অভাবে অনেক মুল্যবান ও প্রয়োজনীয় এক্সরে মেশিন, ইসিজি মেশিন অব্যবহৃত পরে আছে।

রোগিদের প্রয়োজনে পর্যাপ্ত স্যালাইন ওষুধ সরবরাহ করনের পাশাপাশি লালমোহন হাসপাতালে ডাক্তার নার্সসহ স্টাফ বৃদ্ধির করার জন্য প্রাণের দাবি জানান এলাকাবাসি।

লালমোহন হাসপাতালের টিএস ডাঃ আ: রশিদ জানান, হঠাৎ করে ডায়রিয়া রোগি বেড়ে যাওয়ায় একটু সংকট হলেও আমরা দ্রুত ব্যবস্থা নিচ্ছি। তাছাড়া রেডিও গ্রাফার, কার্ডিও গ্রাফার, টেকনিশিয়ান, ডাক্তার, নার্সসহ সকল পদে জনবল বৃদ্ধির চেষ্টা চলছে। লালমোহন হাসপাতালে এক্সরে, ইসিজিসহ রোগিদের রক্ত তথা মল মুত্র পরীক্ষা করানোর ব্যবস্থা যাতে হয় সেজন্য চেষ্টা করছি। আশা করি শীঘ্রই হয়ে যাবে।

Comments With Facebook